অধ্যক্ষ

(প্রফেসর মোঃ শহীদুজ্জামান মিয়া )

              অধ্যক্ষ (আইডি-২৪০৪)

সরকারি মাওলানা মোহাম্মদ আলী কলেজ, টাঙ্গাইল

 

 

জনাব প্রফেসর মোঃ শহীদুজ্জামান মিয়া ২৬ জুন, ২০২১ খ্রি. তারিখে সরকারি মাওলানা মোহাম্মদ আলী কলেজ, টাংগাইল-এ অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করেন এবং অদ্যাবধি সুনামের সাথে দক্ষ প্রশাসক হিসেবে কর্তব্য পালন করে যাচ্ছেন। তিনি  বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা) ক্যাডারের ১৪তম ব্যাচের একজন চৌকস কর্মকর্তা।

কর্মজীবনঃ ১৬ নভেম্বর ১৯৯৩ সালে বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা) ক্যাডারের ১৪তম ব্যাচের সদস্য হিসেবে শ্রীবরদী সরকারি কলেজ, শেরপুর-এ প্রভাষক (হিসাববিজ্ঞান) পদে যোগদানের মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন প্রফেসর মোঃ শহীদুজ্জামান মিয়া  । এরপর টাঙ্গাইলের স্বনামধন্য ও ঐতিহ্যবাহী সা’দত সরকারি কলেজে প্রভাষক পদে ২৬ জানুয়ারি ১৯৯৯ সালে যোগদানের মাধ্যমে নিজ জেলায় শিক্ষকতা পেশায় নিজেকে নিয়োজিত রাখেন। ১৯ জানুয়ারি, ২০০২ খ্রি তারিখে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি লাভ করে কিছুদিন টাঙ্গাইলের আরেক প্রতিষ্ঠান নাগরপুর সরকারি কলেজে সেবা দান করেন এবং পুনরায় ২০০২ সালের জুন মাসে সা’দত সরকারি কলেজ, টাঙ্গাইলে ফিরে আসেন। বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে সহকারী অধ্যাপক পদে উল্লাপাড়া সরকারি আকবর আলী কলেজ, সিরাজগঞ্জ-তেও কিছুদিন চাকুরি করেন। ২০০৯ সালের শুরুর দিকে পুনরায় ফিরে আসেন সা’দত সরকারি কলেজ, টাঙ্গাইলে। অক্টোবর ২০১০-এ সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন এবং ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত অত্র কলেজে সেবা দান করেন শিক্ষার জন্য নিবেদিত  উদ্যমী এই মানুষটি।

২০১৬ সালের জুনে  মোঃ শহীদুজ্জামান মিয়া স্যার টঙ্গী সরকারি কলেজ, গাজীপুরে উপাধ্যক্ষ হিসেবে প্রশাসনিক দায়িত্ব লাভ করেন । উপাধ্যক্ষ হিসেবে অত্যন্ত দক্ষ, কর্মঠ এই মহান শিক্ষক মাদ্রাসা শিক্ষক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট, গাজীপুর-এ   পরিচালক পদে যোগদান করেন। প্রায় সাড়ে তিন বছর সূচারুভাবে নিজ পদের দায়িত্ব পালন শেষে আবার ফিরে আসেন সা’দত সরকারি কলেজ, টাংগাইল-এ উপাধ্যক্ষ হিসেবে। কিছুদিন প্রকল্প পরিচালকের দায়িত্ব পালন শেষে ফেব্রুয়ারি ২০২০ সালে মজলুম জননেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর নিজ হাতে গড়া প্রতিষ্ঠান (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিজে সরকারিকরণ করেন) সরকারি মাওলানা মোহাম্মদ আলী কলেজ, টাঙ্গাইল-এ উপাধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করেন। প্রফেসর মোঃ শহীদুজ্জামান মিয়া ২৬ জুন, ২০২১ খ্রি. তারিখে সরকারি মাওলানা মোহাম্মদ আলী কলেজ, টাংগাইল-এ অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করেন এবং অদ্যাবধি সুনামের সাথে দক্ষ প্রশাসক হিসেবে কর্তব্য পালন করে যাচ্ছেন। বর্ণময় ক্যারিয়ারে যে পদেই কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন, সেখানেই দেখিয়েছেন নিজের প্রতিভা। গ্রহণ করেছেন সরকারের দেওয়া বিভিন্ন উচ্চতর প্রশিক্ষণ।

শিক্ষা জীবনঃ প্রফেসর মোঃ শহীদুজ্জামান মিয়া স্যারের শিক্ষা জীবনের হাতে খড়ি নিজ গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকেই। তিনি  কৃতিত্বের সঙ্গে ১৯৮২ ও ১৯৮৪ সালে যথাক্রমে ঢাকা বোর্ড থেকে এসএসসি ও এইচএসসি পাশ করেন। উচ্চ শিক্ষার জন্য ভর্তি হন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ-এ  এবং এই প্রতিষ্ঠান হতে ১৯৮৮ সালে কৃতিত্বের সঙ্গে বিবিএ ডিগ্রী লাভ করেন। একই প্রতিষ্ঠান থেকে ১৯৮৯ সালে লাভ করেন এমবিএ ডিগ্রী।

পারিবারিক জীবনঃ ১ আগস্ট ১৯৬৭ সালে এক বনেদী মুসলিম পরিবারে জন্ম প্রফেসর মোঃ শহীদুজ্জামান মিয়া স্যারের । বাবা মোহাম্মদ আলী মিয়া এবং মা লতিফা বেগমের সন্তানদের মধ্যে তিনি তৃতীয়। স্যারের সহধর্মীণী জনাব ফৌজিয়া ইয়াছমিন ও পেশায় একজন শিক্ষক যিনি বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা) ক্যাডারের একজন সদস্য এবং  সহযোগী অধ্যাপক পদে মাউশি অধিদপ্তরে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত। ব্যক্তি জীবনে  প্রফেসর মোঃ শহীদুজ্জামান মিয়া  গর্বিত ২ সন্তানের জনক।

 

কর্মজীবনের পুরোটা সময়ে প্রফেসর মোঃ শহীদুজ্জামান মিয়া স্যার শিক্ষার আলো প্রজ্জ্বলিত করতে সদা চেষ্টা করে যাচ্ছেন। বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে একাডেমিক ও প্রশাসনিক দু’জায়গাতেই সফল শিক্ষাকে ব্রত হিসেবে নেওয়া এই ব্যক্তিত্ব। শিক্ষার বাতিঘর এই ব্যক্তিত্ব শিক্ষা বিপ্লবে কাজ করে যাচ্ছে নিরবে, নিভৃতে।